Friday, 5 August 2011

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি : সাধারণ মানুষের জীবন দুর্বিষহ



ডেস্ক রিপোর্ট
শুরু হয়েছে মাহে রমজান। সিয়াম সাধনার জন্য মুসলমানরা এ মাসের অপেক্ষায় ছিলেন। আর নিত্যপণ্যের ব্যবসায়ীরা যেন অপেক্ষায় ছিলেন অধিক মুনাফা লাভের আশায়। চলতি রমজান মাসে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে সাধারণ মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। বিস্তারিত খবর আমাদের প্রতিনিধিদের :
মংলা (বাগেরহাট) : মংলার বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের দাম লাগামহীনভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে এ অঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রা দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। বাজারে উপস্থিত ক্রেতা সাহাবুদ্দিন, মামুন, রনি, নাজমা, ইদ্রিস অভিযোগ করে বলেন, রোজায় নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি সাধারণ মানুষকে বিপাকে ফেলেছে। এব্যাপারে তারা সরকারের নিয়ন্ত্রণহীন বাজার মনিটরিং ব্যবস্থাকে দায়ী করেছেন। ব্যবসায়ীরা জানান, রমজান সামনে রেখে প্রতি বছরই মহাজনরা পণ্য মজুত রেখে দাম বাড়িয়ে দেন। ফলে তাদের কিছু করার থাকে না। মংলা বণিক সমিতির সভাপতি হাবিব মাস্টার বলেন, রমজান উপলক্ষে কোনোভাবেই যেন দাম না বাড়ে সে জন্য সরকারের পাশাপাশি ব্যবসায়ী সংগঠনগুলো ব্যবসায়ীদের ওপর কড়া দৃষ্টি রাখছে।
রাঙ্গুুনিয়া (চট্টগ্রাম) : রাঙ্গুনিয়া উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়েই চলেছে। রমজান মাস শুরুতে পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। চাল, ডাল, তেল, মরিচ ও শাকসবজিসহ অনেক পণ্যের দাম দ্বিগুণ বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। বিভিন্ন হাটবাজার পরিদর্শন করে জানা যায়, উপজেলার রোয়াজারহাট, রানীরহাট, দোভাষী বাজার, কোদালা বাজার, শিলক, পদুয়া রাজারহাট, ধামাইরহাট, শান্তিরহাট, গোছরাবাজারসহ অধিকাংশ হাটবাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে। এসব বাজারে কাঁচামাল ব্যবসায়ীদের একাধিক সমিতি রয়েছে। যারা বাজার পরিস্থিতি বুঝে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয় বলে জানা গেছে। ফলে হাটবাজারগুলোতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য চট্টগ্রাম শহরের চেয়ে অনেক বেশি দামে ক্রয় করতে হয়। রমজান মাস শুরুতে বাজারগুলোতে অনেক পণ্যের দাম দ্বিগুণ বাড়িয়েছে বলে ভুক্তভোগীরা দাবি করছেন।
হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) : হাটহাজারীতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম লাগামহীনভাবে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে চলছে। বাজার মনিটরিংয়ের একটি কমিটি থাকার পরও ওই কমিটি দায়িত্ব পালন না করায় এ অবস্থা হয়েছে হাটহাজারীতে। এদিকে প্রতিদিন কাঁচাবাজার, মাছ, মাংস, মুরগি ও সবজিসহ বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বেশি দামে ক্রয় করেও প্রতিনিয়ত অতিরিক্ত মুনাফার লোভে ব্যবসায়ীরা ওজনে প্রতি কেজিতে ১০০ গ্রাম করে কম দিচ্ছে বলে ক্রেতারা জানান। বর্তমানে বাজারে ৮০ টাকায় বিক্রি হলেও অনেক দোকানে চিনি পাওয়া যাচ্ছে না। আর প্রতিদিন বেড়েই চলছে চিনির দাম।
বিভিন্ন বাজার ঘুরে জানা যায়, গত কয়েক বছরের বাজার দর হার মেনেছে এবার। হাটহাজারীর বিভিন্ন বাজারে চিনি প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা, সয়াবিন তেল ১১০-১২০ টাকা, ছোলা ৮০-৮৫ টাকা, পেঁয়াজ ২৮-৩০ টাকা, বেগুন ৪০-৪৫ টাকা, ধনেপাতা দেশি ৩০০ টাকা, শসা/ফল ৪০-৪৫ টাকা, মরিচ ৯০-১০০ টাকা, বরবটি ৫০-৬০ টাকা, মুরগি ১৪০-১৪৫ টাকা, মাংস (হাড়ছাড়া) ৩৫০ টাকা, (হাড়সহ) ৩০০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। সাধারণ ক্রেতারা এসব বাজারে বেশি দামে ক্রয় করে প্রতিদিন হিমশিম খেতে হচ্ছে।
সাপাহার (নওগাঁ) : শুরু হয়েছে মাহে রমজান। সিয়াম সাধনার জন্য মুসলমানরা এ মাসের অপেক্ষায় ছিলেন। আর নিত্যপণ্যের ব্যবসায়ীরা যেন অপেক্ষায় ছিলেন অধিক মুনাফা লাভের আশায়। তাই রোজা শুরুর সঙ্গে সঙ্গে বাজারগুলোতে জিনিসপত্রের দাম বাড়ার হিড়িক পড়েছে। রোজার প্রথম দিনে উপজেলার বাজারগুলোতে ক্রেতার ঢল নেমেছিল। আর এ সুযোগে আরেক দফয় সব পণ্যের দাম বাড়িয়েছে বিক্রেতারা। বিভিন্ন হাটবাজারে, চাল, আটাসহ নিত্যপ্রয়োজণীয় দ্রব্যসামগ্রীর মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে। ফলে রমজান মাসে বাজার করতে এসে জিনিসপত্রের দাম শুনে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠছে। ত্বরিত্ গতিতে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা না হলে চলতি পবিত্র রমজান মাসে ক্রেতাসাধারণ চরম ভোগান্তির শিকার হবে। হাটবাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রীর আমদানির অভাব না থাকলেও হঠাত্ করে চাল, আটা, সয়াবিন, রসুন, আদা, চিনি ও গুড়সহ প্রায় সব জিনিসের মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে। মাত্র এক সপ্তাহ আগে যে চাল, আটাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র যে দরে বিক্রি হয়েছে বর্তমানে সেসব দ্রব্যের মূল্য প্রতি কেজিতে ৪ থেকে ৫ টাকা বেড়েছে।
সালথা (ফরিদপুর) : ফরিদপুরের নগরকান্দা ও সালথা উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাটবাজারে গত এক সপ্তাহে চিনি, পেঁয়াজ, ছোলা, ভোজ্যতেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়েছে কয়েকদফা। বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সবখানেই নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। বুধবার উপজেলার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, চিনি প্রতি কেজি ৭৫-৮০, সয়াবিন ১৩০-১৩৫, আটা ৩৫-৪০, মসুর ডাল ৯০-১০০, খেসারির ডাল ৫৫-৬০, ছোলা ৭৫-৮০, পোলট্র্রি মুরগি ১৫০-১৬০, গরুর গোশত ২৮০-৩০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি বেড়েছে তরিতরকারি ও বিভিন্ন ধরনের ফলমূলের দাম। আলু প্রতি কেজি ১৫-১৮, বেগুন ৩০-৪০, পেঁয়াজ ৩০-৩৫,পটল ৩২-৩৬, পেঁপে ১৮-২০, খেজুর ৮০-২৫০, আপেল ১৪০-১৬০ টাকা। দ্রব্যমূল্যর ঊর্ধ্বগতির কারণে সবচেয়ে বেশি সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন দিনমজুর ও সমাজের নিম্নআয়ের মানুষ। বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার না থাকায় এসব নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম আকাশচুম্বি হয়েছে বলে ক্রেতারা মনে করছেন। ক্রেতারা আরও জানান আগে কয়েকদিন পরপর ভ্রাম্যমাণ আদালত বসাতে বাজারের জিনিসপত্রের দাম ও পণ্যের গুণগতমান ঠিক ছিল। কিন্তু গত বছর সহকারী কমিশনার ভূমি কার্বাইড মিশ্রিত আম ধরার কয়েকদিন পর তাকে অন্যত্র বদলি করানোর পর থেকে এ পর্যন্ত আর কোনো ভ্রাম্যমাণ আদালত বাজার মনিটরিং করেননি। ফলে ব্যবসায়ীরা লাগামহীনভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়িয়ে যাচ্ছে।
তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) : রমজানের প্রথম দিন থেকে কাঁচাবাজার তথা শাক-সবজি, মাছ-মাংসের দোকানে যেন আগুন লেগেছে। আর এসব দ্রব্য সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে। গত ১ সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজিতে ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা মূল্যবৃদ্ধি পেয়েছে। বাজার তদারকি কর্মকর্তা না থাকায় একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী মনগড়া মূল্য নির্ধারণ করে এসব দ্রব্যসামগ্রী বিক্রি করছে। সরকারিভাবে প্রতিলিটার সয়াবিন তেল ১০৫ টাকা বিক্রি করার কথা থাকলেও তাহিরপুরে প্রতি কেজি সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায় । চিনির দাম প্রতিকেজি ৬৫ টাকা নির্ধারণ করা হলেও প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়। ১০ টাকা কেজির আলু বিক্রি হচ্ছে ১৬ টাকায়। কাঁচামরিচ ৪০ টাকা থেকে বেড়ে দ্বিগুণ ৮০ টাকায়। নিম্নমানের খেজুর ৭০ টাকা, আশ্বিনা আম ৮০ থেকে ১২০ টাকা, আদা ৫০ থেকে ৮০, শসা ২০ থেকে ৪০, চাল প্রতি ৫০ কেজি বস্তা মোটা ও চিকন চাল প্রতি বস্তায় বেড়েছে ১শ’ থেকে ১৫০ টাকা। এছাড়া আরও অন্যান্য দ্রব্যসামগ্রীর মূল্যও বৃদ্ধি পেয়েছে ব্যাপক। ফলে নিম্নআয়ের মানুষ এসব দ্রব্য কিনতে গিয়ে পড়ছে চরম বিপাকে।
নাগরপুর (টাঙ্গাইল) : বাজার মনিটরিং না থাকায় নাগরপুরে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে। উপজেলার সদর বাজারসহ আশপাশের বাজারগুলোতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য একেক দোকানে একেক দামে বিক্রি হচ্ছে। কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা করছে না ব্যবসায়ীরা। এতে ক্রেতা সাধারণ প্রতারিত হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের কোনো মাথা ব্যথা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। বৃহস্পতিবার উপজেলার সদর বাজারের বিভিন্ন দোকান ঘুরে নিয়ন্ত্রণহীন বাজারের বিভিন্ন অসঙ্গতি চোখে পড়ে। একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী কৃত্রিম সঙ্কট সৃষ্টি করে তাদের ইচ্ছেমত পণ্যসামগ্রী বিক্রি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণহীন হওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষ হিমশিম খাচ্ছে। জানা যায়, গত একদিনের ব্যবধানে কাঁচামরিচ ৬০ টাকার পরিবর্তে ৮০ টাকা, ছোলা ৬৫-৭০, চিনি ৬৬-৭০ ও খোলা সয়াবিন লিটার প্রতি ১০৫ টাকা থেকে ১১০, কোনো কোনো ক্ষেত্রে ১১৫ টাকাও বিক্রি হচ্ছে। ক্রেতা তোফায়েল জানান, সরকার কর্তৃক দাম নির্ধারণ করা থাকলেও শুধু মনিটরিংয়ের অভাবে অস্থির হয়ে উঠেছে বাজার। ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী সুধির মণ্ডল বলেন, একদিন আগে কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে ৫০/৬০ টাকা দরে। একদিনের ব্যবধানে বৃহস্পতিবার ২০ টাকা বেড়ে ৮০ টাকা প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে। ক্রেতা হাসমত আলী, নজরুল ও কাইয়ুম জানান, খুচরা দোকানিরা খোলা সয়াবিন ১১০ থেকে ১১৫ টাকা বিক্রি করছে। এছাড়া পিঁয়াজ, রসুন, আদাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রীর দামও আকাশচুম্বী

No comments:

Post a comment